খুজুন

Ads

Myself

Lanzu

Fun

ফটো গ্যালারি

বউ এর সাথে প্রেম, অফুরন্ত ভালবাসা

Collceted By Lanzu Ahmed
 
অবশেষে নানা মিয়া এক উর্বশী মেয়ের সাথে তন্ময়রে বিয়ে ঠিক করে ফেলে। অবশ্য এই মুহূর্তে তন্ময়রের বিয়ে করার কোন ইচ্ছা নেই, কারণ বেচলর লাইফটা সে খুব ভাল ইঞ্জয় করতাছে। সকাল বেলা ক্লাস, দুপুর বেলা বিছানায় সুয়ে সুয়ে মোবাইলে মুভি দেখা, সন্ধ্যা বেলা হাজী হোটেলে চিকেন পার্টি, রাত্রে বেলা ফেইসবুকিং, LIFE IS SO BEAUTIFUL এর মধ্যে আবার বিয়ে শাদীর ভেজাল করার দরকার কি তন্ময়রের মত আপাতত তাইই। কিন্তু ওর নানার একটাই কথা মরার আগে নাতবৌ দেইখা যাইতে চাই।
 
তন্ময় ঠিক করেছিল মেয়ে কে দেখেই না বলে দিবে, কিন্তু বিথির ঝর্ণার পানির মত স্বচ্ছ কাজল কালো চোখের দিকে তাকিয়ে আর না করতে পারে নাই। নিজের থেকেই সে বিয়েয়ের জন্য সম্মতি দিয়ে দেয়। তন্ময়রের নানা চব্বিশ ঘণ্টার ভিতরে অলিমা ছাড়া বিয়ের সব কাজ সম্পন্ন করে ফেলে। বিথি আর তন্ময় দুইজনেই ইন্টার সেকেন্ড ইয়ারে পড়ে, একজন গ্রামে আরেকজন ঢাকায়। বিয়ে টা তন্ময়রের জন্য আকস্মিক হলেও বিথির জন্য তেমন ছিলনা,, কারন ওকে আগেই তন্ময়রের কথা বলা হয়েছে এবং ছবিও দেখেছে, এ জন্য ও আগে থেকেই বিয়ের জন্য মানসিকভাবে প্রিপেয়ারড ছিল। কিন্তু দুজনেই বিয়ের পড়বে বলে সম্মত হয়।
 
কিছু দিন পর তন্ময় ঘরে শুয়ে শুয়ে মোবাইলে মুভি দেখছিল, এমন সময় ঘরে তন্ময়রে আম্মা প্রবেশ করে,
তন্ময়রের আম্মা= কিরে তোর মামার সাথে দেখা হইছে,
তন্ময়= না
তন্ময়রের আম্মা= দুপুরে খেয়ে তোর মামার বাসায় যা, কত গুলা কাঁঠাল দিবে, নিয়া আসবি।
তন্ময়= ঠিক আছে, ভারা দেও।
তন্ময়রের আম্মা= তোর মামার বাসায় যাইতে আবার ভারা লাগে, হেটে যা।
 
দুপুরের খাবারের পর একটু বিশ্রাম নিয়ে শ্বশুর বাড়ি থেকে দেয়া একটা নীল চেক সার্ট পড়ে তন্ময় মামার বাসার উদ্দেশ্যে যাত্রা শুরু করে। তন্ময়রের খুব ভাল হাটার অভ্যাস আছে, পায়ে হেটে আধা ঘণ্টার পথ ও কখন যানবাহনে চড়ে না। যাওয়ার পথে রাস্তার বাম পাশে একটা গার্লস কলেজ পড়ে, স্কুল কলেজের সামনে তন্ময় বেশি একটা দাড়ায় না, কারণ এখানে মেয়েদের ভিড় থাকে, তার উপরে তন্ময় একটু লাজুক। মাথা নিচু করে দ্রুত হাঁটতে থাকে। এমন সময় পিছন থেকে একটা মেয়েলি কণ্ঠ ডাক দেয় “এই যে একটু দাঁড়ান”
তন্ময় পিছনে তাকিয়ে দেখে সাদা নেকাব পড়া একটা মেয়ে ওর দিকে দৌড়ে আসছে। কাছে আসতেই হাপাতে হাপাতে জিজ্ঞেস করে “আমাকে চিনছেন”
তন্ময়= তুমি বিথি না??
বিথি= হুম্ম, কিভাবে চিনলেন আমাকে??
তন্ময়= তোমার চোখ দুটো অনেক সুন্দর, এমন মায়াবী চোখ আমি কখন দেখি নাই, তোমার চোখ কি রং বদলায়??
বিথি একটু লজ্জা পায়, কোন উত্তর করে না, ওর বড় বড় নিঃশ্বাসের বাতাশ তন্ময়রের শরীরে পরছে। ও আবারও প্রশ্ন করে “আপনি কি আমার সাথে দেখা করতে এসেছেন??”
তন্ময়= নাহ, আমি তো মামার বাসায় জাচ্ছিলাম।
বিথি একটু লজ্জা পায়, এই লজ্জা টা একটু ভিন্ন, এটা প্রত্যাক্ষিত হওয়ার লজ্জা, এটা আশা ভঙ্গের লজ্জা যেটা মুখে বলা যায় না। বিথি ভাবছিল তন্ময় ওর সাথে দেখা করতে আসছে। বিথি চুপ করে আছে, তন্ময় আবার প্রশ্ন করে “তুমি আমাকে এতো দূর থেকে চিনলে কি ভাবে??”
বিথি= আসলে আপনার সার্ট টা দেখে চিনসি, এইটা আমি পছন্দ করেছিলাম।
তন্ময়= সার্ট টা অনেক সুন্দর হইছে, তোমার পছন্দ আছে।
এমন সময় বিথির বান্ধবীরাও হাজীর
১ম বান্ধবি= কিরে এতো জোরে দৌড় দিলি কেন??
২য় বান্ধবি= বয়ফ্রেন্ড পাইয়া বেস্ট ফ্রেন্ড রে ভুইল্লা গেলি
বিথি= চুপ, বয়ফ্রেন্ড না আমার হাসবেন্ড।।
১ম বান্ধবি= আরে একই তো কথা বিয়ার আগে বয়ফ্রেন্ড বিয়ার পর হাসবেন্ড, জিনিস তো একই।
২য় বান্ধবি= দুলা ভাই একটা আইস ক্রিম খাওয়ান।
তন্ময়= আমি তোমার দুলা ভাই না, ফাও কথা বলবা না।
২য় বান্ধবি= কিজে বলেন না, আমাদের বান্ধবিকে নিয়া গেলেন, আর এখন এই কথা।
তন্ময়= নেকামি কইর না, তোমগো বান্ধবিরে তোমরা নিয়া যাও।
বিথি ওদের কথা শুনে মুখের উপর হাত দিয়ে মুচকি মুচকি হাসছে।
২য় বান্ধবি= এখন তো এই কথা বলবেন ই, কারণ পাখি তো খাচায় এসে পরছে।
এমন সময় পাশ থেকে বিথি বলে উঠে “এই থাম, তোরা যা আমি আসছি”
বিথি= কিছু মনে করবেন না, ওরা দুষ্টামি করছে
তন্ময়= আমি জানি, আমিও দুষ্টামিই করছি। এখন আমি যাই।
 
বিথি খুবি মিষ্টি এবং লাজুক একটা মেয়ে, কিন্তু যার সাথে একবার মিশে যায় তাকে দেখিয়ে দেয় সে কতবর দুষ্টের শিরমনি। বিথিকে বিদায় দিয়ে তন্ময় সামনে হাটা শুরু করে, হাঁটতে থাকে আর বিথিকে নিয়ে ভাবতে থাকে, হঠাৎ মনে মনে বলা শুরু করে= ইস মোবাইল নাম্বার টা নেয়া হল না, ফেইসবুক ইউস করে কিনা সেটাও তো জানা হল না। আমি আসলেই একটা ফরমালিন।
 
কিছু দিন পর তন্ময় ঢাকায় ফিরে আসে, হোস্টেলে ঢুকতেই বন্ধুরা যে যার মত হরর স্টোরি শুনাতে শুরু করে, এক জন বলে= এক সপ্তাহের ছুটি নিয়া দুই সপ্তাহ থাইকা আইছ, তোমার খবর আছে চান্দু,। আবার আরেক জন এসে বলে= তরে সিউর হোস্টেল থেকে বের করে দিবে। কিন্তু তন্ময়রের কোন টেনশন নাই কারণ সে এভারেস্ট জয় করে আসছে ( আই মিন বিয়ে করে আসছে) আর এটা হল টিচার ভালো করেই জানে। তন্ময় রুমে ঢুকেই দেখে ওর চকির উপর মাসুদের লুঙ্গি, লুঙ্গি টা হাতে নিয়া মাসুদের মুখে মারে। লাঞ্জু তন্ময়রের রুমমেট আবার ক্লাসমেটও। পাশ থেকে তন্ময়রের আরেক রুমমেট শান্ত বলে উঠে= আইতে না আইতেই বান্দরের লাফালাফি শুরু অইয়া গেসে
 
তন্ময় কোন রিপ্লাই করে না। সে ব্যাগ, টেবিল, বিছানা পত্র না গুছিয়েই শুয়ে পড়ে।
শান্ত আর লাঞ্জু ভাবে তন্ময়রের হয়ত মন খারাপ, বাড়িতে খারাপ কিছু হইছে।
বিকালে তন্ময় ঘুম থেকে উঠলে শান্ত আর লাঞ্জু ওকে জিজ্ঞেস করে= কিরে দোস্ত তোর কি হইছে
তন্ময়= আরে তেমন কিছু হয় নাই, জাস্ট আমি সিঙ্গেল থেকে মিঙ্গেল হয়ে গেসি
শান্ত= মানে??
তন্ময় = মানে আমার বিয়ে হয়ে গেছে
লাঞ্জু= কি কস মামা!! ভাব টাতো এমন ধরসছ, যেন তোর বউ মইরা গেছে।
শান্ত= তাইলে তো আজকে সন্ধ্যায় হাজী হোটেল চিকেন পার্টি হইব প্লাস গরুর গোস্তের তেহারি। পকেট তো তোর গরম আছেই।।
 
হোস্টেলে আসছে এক সপ্তাহ হয়ে গেছে, এই কয়দিন পড়ালেখা, খেলাধুলা, বন্ধুদের সাথে আড্ডা ভালোই চলছে, কিন্তু যখনি একটু অন্যমনস্ক হয় তখনি বিথির কথা মনে পড়ে, চোখের সামনে ভেসে উঠে দিঘির জলের মত স্বচ্ছ কাজল কালো বড় বড় চোখ। মানুষ যখন প্রেমে পড়ে তখন ভালবাসার মানুষ কে নিয়ে চিন্তা করতেও ভালো লাগে, ওর নাম বার বার উচ্চারণ করতেও ভালো লাগে। হঠাৎ মোবাইলের দুইটা টুন টুন শব্দ হয়। মোবাইল টা হাতে নিয়ে দেখে ফেইসবুক থেকে একটা ফ্রেন্ড রিকুয়েস্ট আসছে, নাম বিথি ইসলাম বীথি। নাম টা পড়েই তন্ময়রের হার্ট জোরে জোরে পাম্পিং করা শুরু করে। এটা কি সেই বিথি?? যাকে তন্ময় ভালবাসে। কোন কিছু না দেখেই কনফার্ম করে ফেলে। কিছুক্ষনের মধ্যেই একটা ম্যাসেজ আসল
বিথি= কেমন আছেন??
তন্ময়= কে তুমি??
বিথি= নিজের বউ কেও চিনেন না!!
তন্ময়= তুমি কি সত্যিই বিথি??
বিথি= না, আমি পেতনী। ভয় পাইছেন??
তন্ময়= নাহ, তুমি পেতনী হইলে আমি ভেম্পায়ার, সোঁ ভয় পাওয়ার কিছু নাই। আমার আইডি পাইছ কিভাবে??
বিথি= আপনার ছোট বনের কাছ থেকে নিয়েছি।
তন্ময়= আমার বিশ্বাস হচ্ছে না, তুমি বিথি। একটা ছবি দেও।
 
সাথে সাথে বিথি একটা ফটো সেন্ট করে দেয়। তন্ময় বিথির ফটোর দিকে তাকিয়ে আছে, বিথির মাথায় একটা ধূসর রঙের স্কার্‌ট, ডাগর ডাগর চোখের নিষ্পাপ চাহনি, গোলাপি ঠোঁটে মৃদু হাঁসির আভা, চাদের মত মায়াবী মুখমণ্ডল। তন্ময় এক পলকে বিথির ছবির দিকে তাকিয়ে আছে। তন্ময় একটু পর পর মোবাইল অন করে ছবিটা দেখে, এমন কি রাত্রে বেলা ছবিটা দেখতে দেখতে ঘুমাইয়াও গেছে।
 
***
রাত বার টার দিকে নেট ব্রাউজ করতে করতে মাসুদের মোবাইলের চার্জ শেষ হয়ে যায়, লাঞ্জু তন্ময়রের মাথার কাছে যায়, ডিম লাইটের নিভু নিভু আলোতে বিছানা হাতরিয়ে তন্ময়রের মোবাইল টা খুজে বের করে। পাওয়ার বাটন ক্লিক করে মোবাইলের লক ওপেন করতেই বিথির ছবি ভেসে উঠে। ছবিটার দিকে তাকিয়ে তন্ময় নিঃশব্দে একটা মুচকি হাসি দেয়।
পরের দিন বিথি তন্ময় কে ম্যাসেজ দেয়
বিথি= জানেন আজকে একটা এক্সাইটেড কাজ করেছি।
তন্ময় = কি কাজ করছ??
বিথি= আমার ভাবি ঘুমিয়ে ছিল, উনার নাকের নিচে লিপ লাইনার দিয়ে মোছ একে দিয়েছি।
তন্ময়= এগুলা তো বাচ্চারা করে, তুমি কি বাচ্চা নাকি??
বিথি= হুম, আমি শিশু, আপনে তো বুড়া। আমি ওয়েট করছি ভাবি ঘুম থেকে উঠলে কি হয়, সেই সিচুয়েশন টা দেখার জন্য আমি আরও এক্সাইটেড।
তন্ময়= কি আবার হবে, তোমার ভাবি ঘুম থেকে উঠবে, কারো সামনে পরবে, সে বলব তোমার মুখে এসব কি? তোমার ভাবি আয়না দেখবে আর বলবে কোন শয়তান এই কাজ টা করছে। এর পর মুখ ধুয়ে ফেলবে। বাস কাহিনী খতম।
বিথি= না, এমন হবে না।
তন্ময়= তো কেমন হবে??
বিথি = ভাবি ঘুম থেকে উঠবে ভাইয়ার সামনে পরবে, ভাইয়া বলবে এই শয়তান এগুলা কি মুখে? আর কয়টা বকা দি্বে। এর পর ভাবি মুখ ধুয়ে আমাকে জিজ্ঞেস করবে এটা কে করছে?
বিথি যেমন বলছে ঠিক তেমন ই ঘটেছে। এই কারণে তন্ময় কে ম্যাসেজ দিয়ে ঘটনার আপডেট জানিয়ে দেয়।
বিথি= দেখলেন তো আমার থিঙ্কিং পাওয়ার।
তন্ময়= হুম, তুমি অনেক চালাক। আচ্ছা বলত সবচেয়ে চালাক প্রাণীর নাম কি??
বিথি= ডলফিন, DOLPHIN IS CLAVER LIKE ME
তন্ময়= ওকে, I LIKE YOU
বিথি= আমি বলছি আমাকে লাইক করতে
তন্ময়= তুমি না বললে LIKE ME
বিথি= আমি বলছি, ডলফিন আমার মত চালাক
তন্ময়= না, তুমি এই কথা বল নাই, এখন ও আছে ম্যাসেজ টা, তুমি LIKE ME বলছ।
বিথি= হুম, বলছি, আপনে বেশি বুঝেন। একটা শয়তান, বান্দর ফরমালিন।
তন্ময়= হাসির ইম
 
এমন সময় বাস্তবেও তন্ময় মুচকি মুচকি হাসতে থাকে। অনেকক্ষণ যাবত শান্ত তন্ময় কে লক্ষ করছিল, তন্ময় একা একা মুচকি হাসছে। শান্ত এইবার বলেই ফেলে
শান্ত= কিরে তুই কি পাগল হইলি নাকি, একা একা হাসতেছিস।
তন্ময়= নারে দোস্ত একটা হাঁসির সিনেমার কথা মনে পরে গেছে।
শান্ত= আমরা তোর মত বলদ না, আমরা বুঝি তুই কার কথা মনে কইরা হাসতেছিস। চালা চালা সময় এখন তোদের।
তন্ময়= দোস্ত হিংসা করিছ না, তোর লাইফে একটা হুর পরি আইব, দেহিছ।
শান্ত= আগে তো নিজের ঢোল পিডা, পরে আমার চিন্তা কর।
তন্ময়= আমি তো আমার ঢোলই পিডাইতেছিলাম, তুইত বাম হাত ঢুকাইলি।
তন্ময় আবার বিথি কে ম্যাসেজ দেয়,
তন্ময়= তোমার কারণে আমার ফ্রেন্ড আমারে পাগল বলছে, তোমার ম্যাসেজ পইরা হাসতাছিলাম, আর ও বলে আমি নাকি পাগল হয়ে গেছি।
বিথি= এতো সত্য কথা কিভাবে বলল, ওরে দুইটা আচার দেন।
তন্ময়= হুম দিমু নে।
 
পরের দিন সন্ধ্যাবেলা প্রচণ্ড বৃষ্টি, তন্ময় বারান্দা দিয়ে বাহিরে তাকিয়ে আছে, একটু দূরে লানজু দাঁড়িয়ে দাঁড়িয়ে মোবাইলে কথা বলছে। তন্ময় ভাবছে এই মুহূর্তে হয়ত বিথি জানালার পাশে বসে বাড়ির অন্য মহিলা সদস্যদের সাথে জোড়ে গান ছেরে ভীষণ আড্ডা দিচ্ছে। এমন সময় শান্ত ও হল সুপার কাসেম হুজুর তন্ময়রের কাছে এসে দাড়ায়। তন্ময়রের কোন খেয়াল নেই ওর পাসে কে দাড়িয়ে আছে। তন্ময় আনমনে কয়েক ফোঁটা বৃষ্টির পানি হাতে নিয়া কাসেম হুজুরের মুখে মারে। কাসেম হুজুর জোরে চিৎকার দিয়ে বলেচ= এই বেয়াদব, তুই আমার গায়ে পানি মারলি কেন??
তন্ময় অপ্রস্তুত ভাবে বলতে শুরু করে= সরি হুজুর, আমি ইচ্ছা করে মারি নাই, আমি ভাবছিলাম লানজু।
কাসেম হুজুর= তো তুই লানজু গায়ে পানি মারবি কেন??
তন্ময়= আসলে হুজুর আমি খেয়াল করি নাই।
কাসেম হুজুর= খেয়াল থাকে কই, বাড়িত কি বউ রাইখা আইছছ??
এই কথা বলার সাথে সাথে সবাই হাসতে শুরু করে। পরিস্থিতি আন্দাজ করতে পেরে কাসেম হুজুর ও হাসতে শুরু করে।
কাসেম হুজুর= সত্যিই তো, তুই তো বাড়িতে বউ রাইখা আইছছই।
তন্ময় লজ্জায় মাথা নিচু করে ফেলে।
কাসেমে হুজুর= আহা, বেটা বউ এর কথা শুনে লজ্জায় লাল হয়ে গেছে।
সবাই আবারো হাসতে শুরু করে, এমন সময় লাঞ্জু বলতে শুরু করে=জি হুজুর মাথাটা পুরা গেছে, রাত্রে বেলা বউ এর ছবি দেখতে দেখতে ঘুমায়। শান্ত ও বলতে শুরু করে= জি হুজুর, প্রায় ই বউ এর কথা মনে করে একা একা হাসে। তন্ময় মনে মনে বলে= দুইটায় সুযোগে বাঁশ দিতাছে।
কাসেম হুজুর= বলিস কিরে, ওর অবস্থা তো পুরা সিরিয়াস।
লানজু= ওরে আইসিইউ তে নেয়া লাগবো
কাসেম হুজুর= আরে নাহ, ওরে ওর বউ এর কাছে পাঠান লাগবো। যা বেটা আগামি সপ্তাহে তোর তিন দিন ছুটি মঞ্জুর।
সবাই হাসতাছে, তন্ময় ও খুব খুশি। লাঞ্জু তন্ময়রের কানের কাছে এসে বলে= দেখসছ দোস্ত কেমনে তরে ছুটি পাওয়াইয়া দিলাম।
তন্ময়= ছুটি পাওয়াইয়া দিছছ, না বাঁশ দিছছ।
লানজু= ছি দোস্ত, তোর আমি বাঁশ দিতে পারি।
তন্ময়= না পারছ না, সুযোগ পাইলে ছারছ না।
 
তন্ময় বিথিকে সাপ্রাইজ দেয়ার জন্য আগে আগে ওদের কলেজের গেটের সামনে গিয়ে দাড়িয়ে থাকে। তন্ময়রের যেই অবস্থা বিথির অবস্থা তার থেকে কম না। আজকাল বিথি আয়নার সামনে দাঁড়িয়ে তন্ময় কে কল্পনা করে, তন্ময় ওকে পিছন দিক থেকে জরিয়ে ধরে কানের কাছে মুখ নিয়ে ফিসফিস করে ভালবাসার কথা বলে। একা একা তন্ময় কে নিয়ে ভাবে। ডাইরির পাতায় রঙিন কলম দিয়ে হৃদয় একে তার ভিতর সুন্দর করে তন্ময়রের নাম লিখে। তন্ময়রের নাম লেখাতেও একটা আলাদা সুখ অনুভব করে বিথি।
 
বিথি প্রাচী মেডামের ক্লাসে অন্যমনস্ক হয়ে তন্ময়রের কথা ভাবছে। প্রাচী মেডাম খুবি রাগি একজন মহিলা, ঘোর পুরুষ বিরোধী, আবার বিবাহ প্রথার বিরোধিতা ও করেন। জিবনে তিন বার বিয়ে করছেন, কিন্তু কোন বিয়েই টেকেনি। ভার্সিটিতে থাকতে লিভিং রিলেশনশিপেও জড়িত ছিলেন। ভীষণ ফেমিনিস্ট টাইপের মহিলা। বেশির ভাগ সময় পাংশু বর্ণের শাড়ী ও কপালে বড় লাল টিপ পরেন, কখন কখন চন্দনের ফোটাও পরেন। উনার বেশির ভাগ লেকচারেই “পুরুষ তান্ত্রিক সমাজ” কথাটার উল্লেখ থাকবেই থাকবে। প্রাচী মেডাম বিথির বিয়ে সম্পর্কে সব কিছুই জানেন। বিথি কে অন্যমনস্ক হয়ে বসে থাকতে দেখে জিজ্ঞেস করে = এই মেয়ে বাইরে তাকিয়ে কি দেখ, পড়া লেখা তো করতে মনে চায়না, কলেজে এসে শুধু ছেলেদের কে চেহারা দেখাও। নিজে তো গল্লায় গেছো অন্যদেরকেও নিজের সাথে নিচ্ছ।
এই বলে বিথিকে কতগুলো কঠিন কঠিন প্রশ্ন করে, যে গুলোর উত্তর করা হঠাৎ করে কারো পক্ষেই সম্ভব না। বিথি একটা প্রশ্নেরও দিতে পারেনা।
প্রাচী মেডাম= পারবে কিভাবে? কলেজে তো আর পড়তে আসো না, আসো ছেলে ঘুরাইতে।
এমন সময় ঘণ্টা পরে, মেডাম ক্লাস থেকে বের হয়ে যায়, পিছনে পিছনে বিথিও ব্যাগ গুছিয়ে কলেজ থেকে কাঁদতে কাঁদতে বের হয়ে যায়। তন্ময় বিথিকে কাঁদতে দেখে কিছুটা অবাক হয়। ও পিছন দিক থেকে বিথিকে ডাক দেয়। বিথি পিছনে তাকিয়ে দেখে তন্ময়। তন্ময় বিথির সামনে গিয়ে দাড়ায়।
তন্ময় = কি বেপার তুমি কাদছ কেন???
বিথি কাঁদতে কাঁদতে বলে= আজকে প্রাচী মেডাম আমাকে অনেক অপমান করছে, অনেক কঠিন কঠিন প্রশ্ন করেছে। আমি কোনটার উত্তর দিতে পারি নাই।
তন্ময়রের প্রচণ্ড রাগ হয়, রাগের কারণে ওর হাত পা কাপতে থাকে। ও কোন ভাবে নিজের রাগ সংবরণ করে বিথিকে বুঝায়
তন্ময়= আরে, প্রাচী মেডাম তো এমনি, তার কথায় আবার কাঁদতে হয় নাকি।
বিথি= আপনি প্রাচী মেডাম কে চিনেন??
তন্ময়= প্রাচী মেডাম কে আবার কেনা চিনে। এলাকার নাম্বার ওয়ান ফেমিনিস্ট এবং এন্টিম্যান
বিথি= এন্টম্যান??
তন্ময়= এন্টম্যান না এন্টিম্যান। এন্টম্যান তো মারভেলস মুভি। এন্টিম্যান হোল পুরুষ বিরোধী মহিলা। এটা আমি আবিস্কার করছি।
 
বিথি আর তন্ময় রাস্তায় পাশাপাশি হাঁটছে, কিছু দূর যাওয়ার পর বিথির বাবার সাথে দেখা হয়। বিথির বাবা তন্ময় কে দেখে খুব খুশি হয়, তারপর দুইজন কে বাসায় নিয়ে যায়। তন্ময় আর তন্ময়রের শ্বশুর দুইজন একসাথে খেতে বসে। পিছনে দাড়িয়ে বিথি খাবার পরিবেশন করে। বিথি ওর বাবাকে বলে
বিথি= আব্বু মাসের ডাউল দিব
বিথির বাবা= হুম, এক চামিচ দে। ওকেও দে
বিথি তন্ময়রের কাছে গিয়ে বলে= আপনাকে ডাউল দিব
তন্ময় = না, লাগবে না।
না বলা সত্ত্বেও বিথি তন্ময়রের প্লেটে দুই চামিচ ডাউল দিয়ে একটা মৃদু হাসি দিয়ে দ্রুত প্রস্থান করে। বিথির বাবা এই দৃশ্য দেখে একটা মুচকি হাসি দিয়ে খাওয়ায় মনযোগ দেয়। তন্ময় বিথির কান্ড দেখে ভাত মাখতে মাখতে ছোট্ট একটা হাসি দেয়।
দুইদিন পর তন্ময় বিছানায়া শুয়ে শুয়ে ভাবছে আগামিকাল সকালে বিথির সাথে দেখা করে ঢাকায় ফিরে যাবে। এমন সময় মাসুদের ফোন আসে
তন্ময়= হ্যালো
লাঞ্জু= আগামিকাল সকাল দশটার আগে আইয়া পরিছ। সোনারগা যামু, পলাপাইন ঠিক হয়ে গেছে
তন্ময়= ড্রেসকোড কি??
লাঞ্জু= ময়লা জুব্বা।।
তন্ময়= কি!!! প্লিজ দোস্ত ড্রেসকোড চেঞ্জ কর
লাঞ্জু= তোর লাইগা আরমানি স্যুট অর্ডার করছি। সবাই এপ্রুভ দিসে তুই না করছ কেন??কথা কম ক, পকেট ভইরা টাকা লইয়ায়।
লাঞ্জু ফোনটা কেটে দেয়।
পরেরদিন বিথি ম্যাসেজ দেয়
বিথি= আপনে কোথায়
তন্ময়= ঢাকায়
বিথি= আমার সাথে দেখা না করেই ঢাকা চলে গেছেন। একবার বললেন ও না।
তন্ময়= রাগ কর না, কুরবানির ঈদের ছুটিতে তোমাদের বাসায় যাবো।
বিথি= আপনাকে দাওয়াত দিলে না আসবেন।
তন্ময়= সমস্যা নাই, হাতে মেহেদি দিয়ে ছবি পাঠাইয়া দিও।
বিথি= হুম, হাতে দিমু, পায়ে দিমু, মাথায়ও দিমু
তন্ময়= মাথায় দেয়ার বয়স তোমার হয় নাই, মাথায় মেহেদি দেয় বুড়ারা
বিথি= I WANT TO BE BURI
তন্ময়= I LIKE BURI
বিথি= সত্যি, আমার একটা বুড়া দাদি আছে, আপনার সাথে খুব ভালো মানাইব।
তন্ময়= হুম, বুড়ীর এক ঠ্যাং কবরে আরেক ঠ্যাং কলার ছিলকার উপরে, তুমি চাও তার সাথে আমি লাইন মারি।
বিথি= একটু লাইন মারলে সমস্যা কি। মানুষ তো মানুষের জন্যই
তন্ময়= আমি শুধু তোমার জন্য
বিথি= আমার তো নিজেরই খাইয়া দাইয়া টাইম নাই, আবার আপনে?
তন্ময়= ঠিক আছে, তোমার দাদির সাথে লাইন মারমু, আগে বুড়ীর গালে স্ত্রিরির মেশিন দিয়া দুইটা ডলা দিয়।
বিথি= কেন??
তন্ময়= আমি বুড়ীর নিরানব্বই টা ভাঁজ পরা গালে কিজ দিমু না।
বিথি= হা হা হা
তন্ময়= তুমি হাস, আমার খুব খারাপ লাগতাছে, মন চাইতাছে তোমার কাছে চলে আসি।
বিথি= একদম ঠিকই আছে, আমার সাথে দেখা না করে গেছেন কেন??
তন্ময়= আমার কান্না আসছে।
বিথি= আরে আমি তো দুষ্টামি করে বললাম, আপনে কাদবেন না প্লিজ।
তন্ময়= আরে আমি তোমার জন্য কাদতেছি না, আমি পেয়াজ কাটতাছি, এই কারণে কাদতেছি, ঝাল মুরু বানামু।
বিথি= শয়তান, বান্দর, ফরমালিন। আপনে এলাকায় আসেন, আপনেরে পিটাইয়া তারগাছ বানামু।
। এভাবে চলতেই থাকবে, অফুরন্ত প্রেম।
আমার লেখা নয়
( গল্পটা কাল্পনিক হলেও চরিত্র গুলো বাস্তব )

     এই ক্যাটাগরির আরও পোস্ট...